ট্রান্সফরমার এর বিভিন্ন অংশ

ট্রান্সফর্মার একটি ইলেকট্রিক ডিভাইস, যারা সাহায্য পাওয়ারকে  1 সার্কিট থেকে অন্য সার্কিটে পাওয়া ট্রানস্ফার করে | এটি ফ্রিকোয়েন্সি এবং পাওয়ার পরিবর্তন করেন | শুধুমাত্র ভোল্টেজ এবং কারেন্টের পরিবর্তন  করে |

স্টেপ আপ ট্রান্সফরমার দ্বারা  ভোল্টেজ বৃদ্ধি করা হয় এবং স্টেপ ডাউন ট্রান্সফরমার দ্বারা  ভোল্টেজ  কমানো হয় |


যেখানে ভোল্টেজ বেশি প্রয়োজন  সেখানে স্টেপ আপ ট্রান্সফরমার ব্যবহার করা হয় | আর যেখানে কম ভোল্টেজের প্রয়োজন সেখানে স্টেপ ডাউন ট্রান্সফরমার ব্যবহার করা হয় | 


কোর


ট্রান্সফরমারের কোর  সাধারণত আয়রন এবং সিলিকন স্টিল দিয়ে তৈরি করা হয় |এই কোর  এর উপর প্রাইমারি এবং সেকেন্ডারি ওয়াইন্ডিং স্থাপন করা হয় |কোর এর মাধ্যমে প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং থাকে সেকেন্ডারী ওয়াইন্ডিং এ  ম্যাগনেটিক ফ্লাক্স স্থানান্তরিত হয় | 


যখন প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং এর ভোল্টেজ প্রয়োগ করা হয়,তখন প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং ম্যাগনেটিক ফ্লাক্স উৎপন্ন হয় |এই ম্যাগনেটিক ফ্লাক্স অল্টারনেটিং হয়ে থাকে, অল্টারনেটিং ফ্লাক্স এর ফলে EMF উৎপন্ন হয় | যার ফলে প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং কারেন্ট উৎপন্ন হয় | এই উৎপন্ন প্রাইমারি কারেন্ট সেকেন্ডারি তে প্রবাহিত হয় | 


ট্রান্সফরমারে কোর এর মূল কাজ হলো ম্যাগনেটিক ফ্লাক্সকে স্থানান্তরিত করতে সহায়তা করা | এই কোরকে পাতলা পাতলা অনেকগুলো শিট দ্বারা তৈরি করা হয় |যে পাতলা পাতলা শিট দ্বারা তৈরি করা হয় তার থিকনেস সাধারণত 0.5 mm হয়ে থাকে | এই শিটগুলো খুব ভালো ভাবেএকটি অন্যটির সাথে লেমিনেটেড করা থাকে | 


এইভাবে অনেকগুলো পাতলা শিট দ্বারা তৈরি করা হয় যেন এডি কারেন্ট লস কম হয় |যদি পাতলা পাতলা শিট  না করে একটিমাত্র খন্ড দ্বারা কোর তৈরি করা হয় তবে ট্রান্সফরমারের ওয়াইন্ডিং গুলো অনেক গরম হবে এর ফলে ট্রান্সফর্মার ও গরম হয়ে যাবে |


এইজন্য পাতলা পাতলা শিট দ্বারা তৈরি করা হয় যেন এডি কারেন্ট লস কম হয় ,এবং সিলিকন স্টিল ব্যবহার করা হয় হিসটেরেসিস লসকে কম করার জন্য |


ট্রান্সফর্মার  ওয়াইন্ডিং


ট্রান্সফরমারের ওয়াইন্ডিং সাধারণত কপার তারের হয়ে থাকে | এটি কোর এর উপর স্থাপন করা হয় | প্রত্যেকটি ওয়াইন্ডিং এ  দুইটি  অংশ থাকে, তা হল প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং এবং সেকেন্ডারী ওয়াইন্ডিং |


প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং এবং সেকেন্ডারী ওয়াইন্ডিং দুটি আলাদা আলাদাভাবে খুব ভালো করে ইনসুলেটিং করা থাকে | কোন ভাবেই যেন একটি অন্যটির সাথে সংস্পর্শে না আসে | 


প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং: যে ওয়াইন্ডিং এর মাধ্যমে বাহির থেকে  অল্টারনেটিং পাওয়ার প্রয়োগ করা হয় ট্রান্সফরমারে তাকে প্রাইমারি ওয়েন্ডিং বলে | প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং কখনো লোডের সাথে সংযুক্ত থাকে না, প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং সব সময় ট্রান্সফরমারের সরবরাহ প্রান্তের সাথে সংযুক্ত থাকে |


সেকেন্ডারী ওয়াইন্ডিং:  যে ওয়াইন্ডিং এর মাধ্যমে লোডে পাওয়ার সাপ্লাই দেওয়া হয় তাকে সেকেন্ডারী ওয়াইন্ডিং বলে |ট্রান্সফরমারের সেকেন্ডারী ওয়াইন্ডিং সব সময় লোডের সাথে সংযুক্ত থাকে |


প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং এ প্রয়োগ প্রকৃত পাওয়ার এর ফলে উৎপন্ন EMF এর ফলে সেকেন্ডারি তে ভোল্টেজ আবিষ্ট হয় | এটি প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং এবং সেকেন্ডারী ওয়াইন্ডিং এর রেশিও এর উপর নির্ভর করে | 


এই ওয়াইন্ডিং গুলো স্থাপন করা হয় ট্রান্সফর্মার এর ধরন অনুসারে | স্টেপ আপ এবং স্টেপ ডাউন ট্রান্সফরমারের উপর নির্ভর করে ওয়েল্ডিং গুলোকে সঠিক পদ্ধতিতে স্থাপন করা হয় |


ট্রান্সফর্মার ট্যাংক


ট্রান্সফর্মার ট্যাংক  সাধারণত মোটা মেটাল দ্বারা তৈরি করা হয় | এটি খুব মজবুর হয়ে থাকে, কারণ এটি  ট্রান্সফর্মার কোর  এবং ট্রান্সফর্মার ওয়াইন্ডিং কে সুরক্ষা দিয়ে  থাকে |


এই ট্যাংক এর মধ্যে  ট্রান্সফর্মার কোর   এবং কোর এর উপর স্থাপিত  ট্রান্সফর্মার ওয়াইন্ডিং স্থাপন করা হয় | যা সাথে ট্রান্সফর্মার  অয়েল দেয়া হয় , যা ইনসুলেটর হিসেবে কাজ করে এবং ট্রান্সফর্মার কে ঠান্ডা রাখে |


বুশিং


বুশিং ট্রান্সফর্মার ট্যাংক এর উপস্থাপন করা হয় | যা ট্রান্সফর্মার ওয়াইন্ডিং এর সাথে সংযুক্ত থাকে, বুশিং এর সাহায্যে ট্রান্সফর্মার ওয়াইন্ডিং এ পাওয়ার সরবরাহ করা হয়  এবং ট্রান্সফর্মার ওয়াইন্ডিং থেকে পাওয়ার  বুশিং এর সাহায্যে লোডে সরবরাহ করা হয় |


বুশিং পাওয়ার কে ট্রান্সফর্মার বডি থেকে আলাদা করে রাখে যা ইনসুলেটর হিসেবে ব্যবহৃত হয় |সরবরাহ  পাওয়ারের উপর নির্ভর করে বুশিং সাইজ নির্ধারণ করা হয় | 


ট্রান্সফর্মার  অয়েল


সাধারণত ট্রান্সফরমারের যে অয়েল ব্যবহার করা হয় তাকে মিনারেল অয়েল বলা হয় | তবে এটি বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে |

বর্তমান সময়ে সাধারণত চার ধরনের ট্রান্সফর্মার অয়েল  বেশি ব্যবহার করা হয়ে থাকে | 

Paraffinic Oil ( High Current ) : যে ধরনের ট্রান্সফরমারে হাই কারেন্ট  এর জন্য তৈরি করা হয় সে ধরনের ট্রান্সফরমারে Paraffinic Oil ব্যবহার করা হয় |


Naphthenic Oil ( Low Current ): যে ধরনের ট্রান্সফরমারে  লো কারেন্টের জন্য তৈরি করা হয় সে ধরনের ট্রান্সফরমারে Nephthenic Oil  ব্যবহার করা হয় |


Bli Based Transformer Oil 

Silicon-Based Transformer Oil


ট্রানসফর্মের অয়েল এর মূল কাজ হলো  ইনসুলেশন তৈরি করা এবং ট্রান্সফর্মার কে ঠান্ডা রাখার জন্য ট্রানসফর্মের অয়েল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ | 


কনজারভেটর ট্যাংক


কনজারভেটর ট্যাংক ট্রান্সফরমারের মূল ট্যাংকের উপরে স্থাপন করা হয় | কনজারভেটর ট্যাংক এবং ট্রান্সফরমারের  মূল ট্যাংক  পাইপের দ্বারা সংযুক্ত থাকে |


কনজারভেটর  ট্যাংকের অর্ধেক অয়েল দ্বারা পূর্ণ থাকে | কখনোই কনজারভেটর ট্যাংককে অয়েল দ্বারা পূর্ণ করা হয় না |ট্রান্সফরমারের  মূল ট্যাংক অয়েল দ্বারা  সবসময় পূর্ণ থাকে |


ট্রান্সফর্মার রানিং  থাকার ফলে ট্রান্সফর্মার ওয়াইন্ডিং গুলো হিট হয় | এই হিটের ফলে ট্রানসফর্মের অয়েল ও হিট হয়, যার ফলে ট্রান্সফর্মার অয়েল এর আয়তন বৃদ্ধি পায় | আয়তন বৃদ্ধির ফলে অতিরিক্ত  অয়েল কনজারভেটর যায় | 


ট্রানসফর্মের অয়েল আবার যখন ঠান্ডা  হয় তখন কনজারভেটর থেকে ট্রান্সফরমারের মূল ট্যাংকে অয়েল আবার ফিরে আসে |


ব্রিদার


ব্রিদার ব্যবহার করা হয় ট্রান্সফরমারের শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়ার জন্য | কনজারভেটর ট্যাংক এবং ট্রান্সফরমারের মূল ট্যাংকে অয়েল যাতায়াতের সময় বাতাস ট্রান্সফর্মার থেকে বাহির করা এবং ট্রান্সফরমারে প্রবেশ করানোর প্রয়োজন হয় |


ট্রান্সফরমারের এই কাজ সম্পাদন করার জন্য ব্রিদার ব্যবহার করা হয় | ব্রিদার ব্যবহার করা না হলে ট্রান্সফর্মার  অয়েল এর উচ্চচাপ এর ফলে ট্রান্সফর্মার ব্লাস্ট হতে পারে |


সিলিকা জেল


সিলিকা জেল এর কাজ হল বাতাস থেকে আদ্রতা  শোষণ করে নেয়া | ব্রিদিং করার সময় ট্রান্সফর্মার বাহির থেকে যে বাতাস গ্রহণ করে তা পরিশোধিত করতে সিলিকা জেল ব্যবহার করা হয়  |


সিলিকা জেল ব্রিদার এর সাথে লাগানো থাকে | সিলিকা জেল দেখতে হালকা ধূসর বর্ণের হয়ে থাকে, কিছুদিন পর এগুলো হালকা বাদামী রঙের হলে পরিবর্তন করা উচিত | না হলে এর কর্মদক্ষতা হারিয়ে যায় | 


রেডিয়েটর


রেডিয়েটর ট্রান্সফরমারের দুই পাশে লাগানো থাকে | যা সাধারণত ট্রান্সফর্মার  অয়েলকে ঠান্ডা করার জন্য ব্যবহার করা হয় |


ট্রান্সফর্মার  অয়েল গরম হলে রেডিয়েটরে  প্রবেশ করে, যা রেডিয়েটরের উপরের দিকে থাকে | রেডিয়েটরের মাধ্যমে  অয়েল বাতাসের সংস্পর্শে এসে ঠান্ডা হয় |


অয়েল যখন ঠান্ডা হয় তখন রেডিয়েটরের  নিচের দিকে চলে আসে এবং ট্রান্সফরমারের  ট্যাংকে ঠান্ডা অয়েল প্রবেশ করেন |


রেডিয়েটর এক্সট্রা কোন বাতাস সরবরাহ করা হয় না,  এটি প্রাকৃতিক উপায় ট্রান্সফর্মার ঠান্ডা রাখার  একটি ভালো ব্যবস্থা |


বুখোলজ রিলে


বুখোলজ রিলে মূলত একটি সেফটি ডিভাইস |Buchholz relay কনজারভেটর ট্যাংক এবং মূল ট্যাংক এর মধ্যে সংযোগ পাইপে স্থাপন করা হয় |


ট্রান্সফরমারের  মাইনর সমস্যা হলে এটি এলার্ম এর  মাধ্যমে সমস্যা সমাধান এর সংকেত প্রদান করে | আর ট্রান্সফরমারে মেজর সমস্যা হলে এটি সার্কিট ব্রেকার টিপ  করার মাধ্যমে ট্রান্সফর্মার অফ করে দেয় |


Buchholz relay তে একটি  গ্লাসের টুকরো ব্যবহার করা হয় | যা দ্বারা  অয়েল প্রবাহ দেখা যায় | অনেক সময় ট্রান্সফর্মার এর সমস্যার কারণে গ্লাস টুকরোটি  ভেঙে গিয়ে ট্রান্সফর্মার এর সুরক্ষা নিশ্চিত করে |


Explosion Valve


ব্রিদার দিয়ে বাতাস বের না হলে এবং খবুলাজ  রিলে  সেফটি না দিতে পারলে অল্টারনেটিভ হিসেবে Explosion Valve ব্যবহার করা হয়  |


এটি একটি সেফটি ডিভাইস | ট্রান্সফর্মার কে বিস্ফোরণ থেকে রক্ষা করে থাকে |এটি ট্রান্সফরমারের গুরুত্বপূর্ণ সেফটি ভাল্ব গুলো কাজ না করলে এই ভাল্বটি  কাজ করে | 



Q1. ট্রান্সফরমারের কয়েল গুলো কিভাবে সংযুক্ত থাকে ?

ANS: কয়েল গুলো একটি অভিন্ন আয়রন কোর দ্বারা চুম্বকীয় ভাবে সংযুক্ত থাকে |


Q2. ট্রান্সফরমারের প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং কাকে বলে ?

ANS: ট্রান্সফরমারের যে  কয়েলে পাওয়ার সরবরাহ  দেয়া হয় তাকে প্রাইমারি ওয়াইন্ডিং বলে |


Q3. ট্রান্সফরমারের সেকেন্ডারী ওয়াইন্ডিং কাকে বলে?

ANS: ট্রান্সফরমারের যে  কয়েলটি সাথে সংযুক্ত থাকে তাকে সেকেন্ডারী ওয়াইন্ডিং বলে |


Q4. ট্রান্সফরমারের কয়েলের ভোল্টেজ এবং  কারেন্টের পরিমাণ কিসের উপর নির্ভর করে ?

ANS: তারের প্যাচের সংখ্যা এবং সাইজের উপর নির্ভর করে |

*

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post